কুষ্টিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে নয়জনের মৃত্যু,দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের অভাব।

শুক্রবার রাত ১টা থেকে শনিবার বিকাল পর্যন্ত কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে আটজন আর জেলার মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অন্যজনের মৃত্যু হয়েছে।

২৩

কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক তাপস কুমার সরকার জানান, শুক্রবার রাত ১টা থেকে শনিবার বিকাল পর্যন্ত কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে আটজন আর জেলার মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অন্যজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের সবার পজিটিভ ছিল।

হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাব দেখা দিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের হাসপাতালে ৩০ জন করোনাভাইরাস রোগীকে চিকিৎসা দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। সেখানে এখন রোগী আছেন ৮০ জন।

“তাদের অধিকাংশেরই অক্সিজেন সাপোর্ট দেওয়া দরকার যা আমাদের সক্ষমতার বাইরে। এখন বিভিন্ন জায়গা থেকে ধারকর্জ করে চালানোর চেষ্টা করছি।”

পরিস্থিতিতে উদ্বেগ জানিয়েছেন জেলার সিভিল সার্জন এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, “জেলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিদিনই উদ্বেগজনক ভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এমন মানুষ যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। লকড্উান ও কঠোর বিধিনিষধ বলবত থাকলেও নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না মানুষের চলাচল। পুলিশ শহরের প্রবেশমুখে বাঁশ বেঁধে সাধারণের চলাচল নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালিয়েও অধিকাশ ক্ষেত্রে ব্যর্থ হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে।”

সংক্রমন বাড়তে থাকায় কুষ্টিয়া পৌরসভায় লকডাউন সাত দিন বাড়িয়ে ২৫ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত করা হয়েছে। শুক্রবার জেলা প্রশাসনের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, কুষ্টিয়ার ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৮ জনের পরীক্ষায় ১১২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

সীমান্তবর্তী জেলা কুষ্টিয়ায় এর আগের দিন চারজনের মৃত্যু হয়।

এই বিভাগের আরও খবর