মহেশপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

৩৫

মোঃহাসান আলী স্টাফ রিপোর্টারঃ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ঝিনাইদহের মহেশপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।সোমবার বিকালে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যলয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে পুস্প্যস্তবক অর্পণ করা হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর সুলতানুজ্জামান লিটন,অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড.শফিকুল আজম খাঁন চঞ্চল, বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,মহেশপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুর রশিদ খাঁন, অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন,আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব শরিফুল ইসলাম,আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক মুক্তার হোসেন,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃআজিজুল হক আজা, জেলা পরিষদের সদস্য এম এ আসাদ,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃআজিজুল হক আজা,ফতেপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃসিরাজুল ইসলাম,মহেশপুর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃকাজী আতিয়ার রহমান,যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ ইয়াকুব আলী, মহেশপুর উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃআমিনুর রহমান, মহেশপুর উপজেলা ছাত্রলীগে সাধারণ সম্পাদক মোঃরুবেল হোসেন-সহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।

মহেশপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদ তিনি তার বক্তব্যে বলেছেন,জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১০ জানুয়ারী স্বাধীন বাংলাদেশে তার প্রিয় মানুষের কাছে ফিরে এসেছিলেন আমাদের স্বাধীনতা পূর্ণতা পেয়েছিল।১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন। ঐদিন রাতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী বঙ্গবন্ধু কে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায়।বঙ্গবন্ধুর ডাকে বাংলার দামাল ছেলেরা মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ভারত মিত্র বাহিনীর কাছে পাকিস্হান হানাদার বাহিনী পরাজিত হয়। বাংলাদেশ স্বাধীন হলে ও বাঙ্গালীর প্রিয়নেতা স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তখন বন্দী ছিলেন পাকিস্তানের মিনওয়াল কারাগারে। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারী পাকিস্তান সরকার বিশ্ববাসির চাপে বঙ্গবন্ধু কে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। বৃটেনের রাজকীয় বিমানে বঙ্গবন্ধু মুক্ত জাতীয় বীরের বেশে লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। বৃটেনের প্রধাণমন্ত্রী এডোওয়াড হীথ বিমান বন্দরে বঙ্গবন্ধু কে স্বাগত জানান।
লন্ডনে বসে বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের তার প্রিয় মানুষের সাথে কথা বলেন। ১০ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধু দিল্লি হয়ে তার স্বপ্নের স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে ফিরে আসেন। আজ ১০ জানুয়ারী জাতির পিতার স্মরণে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা করছি আমরা।যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন কোটি কোটি বাঙ্গালীর হৃদয়ে।

এই বিভাগের আরও খবর